নামাজে শয়তানের ধোকা, এবং মুক্তির উপায়।

নামাজে ভুল হবে এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। খুব স্বাভাবিক বলতে ভুল হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক, এবং নামাজের ভিতর ভুল এটা খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। এমন হয় কেন এটা সবাই জানতে চায়। আমিও জানতে চেয়েছিলাম কিন্তু ভালো কোন উত্তর পাইনি তার বদলে পেয়েছিলাম এক রাশ অপবাদ। আমি নাকি মন দিয়ে নামাজ পরি না, তাই ভুল হয়, তাছাড়া মোবাইল আর কম্পিউটার নিয়ে বসে থাকি তাই এসব হয়। আসলে নামাজে ভুল হলে সাহু সিজদার বিধান ছাড়া আর কিছুই করার নাই, এবং ফরজ ছুটে গেলে পুনরায় নামাজ পড়তে হবে।

ভুল কেন হয়?
আল্লাহ্‌র কাছে বান্দার নামাজ সবচেয়ে বেশি পছন্দের, আর শয়তানের কাজ হল নামাজকে বান্দার থেকে দূরে রাখা। তাই আমরা যখন নামাজ আদায়ের জন্য দাড়াই তখন শয়তান আমাদের বিভিন্ন কথা স্বরণ করিয়ে নামাজের ভিতর ব্যাঘাত সৃষ্টি করে যাতে ভুল এত বেশি হয় যে কয় রাকাত এবং সিজদা কয়টা হইলো, রুকু দিলাম কি/না এই সব সহ আরো বিভিন্ন কাজের কথা স্বরণ করিয়ে দেয়। যাতে নামাজ ভালো ভাবে আদায় করতে না পারে কোন আল্লাহ্‌ এর বান্দা।

এ থেকে মুক্তির কি উপায়?
মুক্তির উপায় একটু কষ্টের এবং লম্বা ধারাবহিকতায় এমন ভুল হওয়া থেকে আমরা রেহাই পেতে পারি। শয়তান আল্লাহ্ এর কাছে বান্দাকে ধোকা দেবার সব রকম ক্ষমতা, শাক্তি চেয়ে নিয়েছে শুধু আপনার আত্তার উপর শয়তানের কোন নিয়ন্ত্রণ নাই। আপনি কি ভাবছেন এটা শয়তান জানে না। তাই নামাজ আদায়ের আগে যখনি আপনি নিয়ত করবেন অযু শুরু করবেন তখন থেকেই আপনাকে বিভিন্ন কাজের কথা স্বরণ করিয়ে দিতে থাকবে এবং অনেক কথা স্বরণ করিয়ে দিতে থাকবে। তাই ফরজ নামাজ আদায় করার সময় শয়তান যতই ধোকা দিক আপনি নামাজ আদায় পুরো করবেন, ভুল হলে সাহু সিজদা দিবেন। আর শয়তানকে সায়েস্তা করার জন্য আপনি নফল নামাজ বেশি করে আদায় করবেন। মানে যাখন কোন কাজ থাকবে না তখন নফল নামাজের নিয়তে দাড়াবেন শয়তান আপনাকে কাজের কথা স্বরণ করিয়ে দিবে ঠিক তখনি আপনি নামাজ ছেড়ে দিয়ে কাজে মন দিবেন, এতে শয়তান আপনাকে ধোকা দিতে এসে সে নিয়েই ধোকা খাবে। আপনারও কাজের কথা মনে পড়বে। এভাবে ধোকা দিতে দিতে শয়তান আর আপনার আশেপাশেও ভিড়বে না।

তথ্যটি শেয়ার করুন

4 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Welcome...
Have you face any kind of problem just comment.