প্রসঙ্গে বিডিজবস.কম এ চাকুরী না পাওয়া

 
প্রসঙ্গে বিডিজবস.কম এ চাকুরী না পাওয়া
পড়াশুনা শেষ করে চাকুরী পাওয়া সবার আশা, কিন্তু পড়াশুনা শেষ করে দেখা যায় নিজেদের বড় ভাই-বোনেরা পড়াশুনা শেষ করে চাকুরী খুজে পাচ্ছে না। সেখানে আমাদের সিরিয়াল আরে লম্বা। তার উপর কারো কারো মামা-খালু-দুলাভাই থাকে না। তারা কিভাবে চাকুরী পাবে!!! তো চাকুরীর বাজার হয়ে গেল মন্দা। মানে আপনার মামা-খালু লাগবে এবং তারা আপনার ভালো দিক বিভিন্ন মাধ্যমে বলে কয়ে আপনাকে একটা কেরানীর!! চাকরী ধরিয়ে দিবে তাতে যদি আপনার আয় রোজগার হয় এবং বিবি-বাচ্চাদের নিয়ে দু’বেলা দু’মুঠো ভাত খেয়ে জীবন ধারণ করে থাকতে পারেন। আচ্ছা আপনার তো মামা-খালু নাই তো এখন কি করবেন। আপনাকে মামা-খালু বানাতে হবে মানে যেহেতু তারা নাই এবং তা বানানো সম্ভব না তাই মামা-খালু যা করে তার মত একটা ওয়েব সাইট হলো বিডিজবস সহ অন্যান্য জব পোর্টাল। মামারা আপনার সব কিছু জানেন এবং তা তাদের মাধ্যমে তা প্রচার করে আপনার জব জুটিয়ে দেন। তবে জব পোর্টাল গুলো যেহেতু আপনার আপন মামা নয় তাই এই মামাকে আপনার যত ভালো দিক, কাজের অভিজ্ঞতা, ট্রেনিং, এত বছর পড়ালেখা করে কি কি শিখলেন সব কিছু বলে দিতে হবে। জব  পোর্টালগুলো আপনাকে সব ধরণের ফরম দিবে ফিলাপ করতে, সবগুলো বুঝে বুঝে ফিলাপ করলে কোন চাকুরী দাতা আপনার সিভি দেখতে পারে। হা, দেখতে পারে যদি সিভি পরিপূর্ন হয়, নতুবা চোখের পলকে সিভি ডিলিট করে দিবে।
জব সাইটে আপনার সিভি কে বানাবে?
    আপনি নিজে বানাবেন, পারেন না!! তাহলে চাকুরী করবেন কিভাবে? আপনাকে দিয়ে চাকুরী হবে না, আপনি আরো বড় কিছু হবেন তবে পড়ায় মন দিন। আর যদি চাকুরী করতেই হয় তবে মোবাইল কম্পিউটারে বসে জব সাইটে লগইন করে সিভি আপডেট করতে থাকেন, একদিনে সম্ভব না হলে প্রতিটি ফিল্ড দেখে দেখে গুগুলে সার্চ দিয়ে বুঝে বুঝে ফিলাপ করেন। যদি বলেন বুঝেন না, তবে বলব তবে ফেবু ক্যমনে চালান? ফেবু যেমনে চালান সেরকম কইরাই জব পোর্টাল গুলা চলে। তবে ফেবুতে পাগল-ছাগল পাবেন তবে এখানে পাবেন আপনার কাঙ্খিত চাকুরী। তাই কয়েক ঘন্টা সময় নিয়ে আপনার প্রফাইল পূরণ করুন এবং সে অনুযায়ী কোন জব সার্কুলার হলে তাতে আবেদন করুন।

আপনার সিভিতে কি কি থাকবে?
১. ক্যারিয়ার অবজেক্টিভ: মানে আপনি কোন পোষ্টে জব করার মত দক্ষতা আছে তা উল্লেখ করে দুই লাইন লিখবেন, লিখতে না পারলে গুগুলে সার্চ দিন অনেক অনেক পাবেন এবং তা পড়ে নিজের মত দুই হা দুই লাইন লিখেন। যদি বলেন পারবেন না তাহলে এত পড়া লেখা করে কি লাভ হইলো যে আপনি দুই লাইন লিখতে পারেন না!!
২. ক্যারিয়ার সামারি: এটার মানে আপনি এই পর্যন্ত কতগুলো জব করছেন, কি কি কাজ করছেন এবং কাজ করতে কি কি শিখছেন এবং টোটাল কত বছর কাজ করছেন। তাই এখানে এমন কিছু লিখবেন যাতে আপানার ক্যারিয়ার অবজেক্টিভের সাথে মিল থাকে। যেমন: আপনার যদি গার্মেন্টেসের বাস্তব অভিজ্ঞতা চার বছরের থাকে এবং কম্পিউটারের কাজ জানা ও পারা সত্বেও কোন কাজ করা সুযোগ না থাকে এবং আপনি যদি কোন অফিস সহকারী পদে যোগ দিতে চান তবে উক্ত গার্মেন্টেসের অভিজ্ঞতাই দিন তবে পোস্ট চেঞ্জ করে অফিস সহকারী লিখে সিভি আপডেট করুন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কম্পিউটারে দক্ষ হতে হবে। কারণ সিভি দেখে চাকুরী দাতা আপনাকে কল দিবে এবং প্রথমেই পিসির সামনে বসিয়ে দিবে। তাই সাবধান।
৩. ট্রেনিং ডিটেইস: শিক্ষা জীবনে আপনি কোন না কোন ট্রেনিং নিয়েছেন হয় সেটা ১ঘন্টার বা ৩ মাসের বা ৬ মাসের সেটা উল্লেখ করুন। এবং কি কি শিখতে পারছেন তাও উল্লেখ করুন। যদি একান্ত কোন ট্রেনিং না থাকে আজই কোন ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হয়ে বেসিক কম্পিউটার শিখে নিন।

৪. একটিভিটি: অনেকেই ফেবুতে গ্রুপ চালিয়ে অনেক মহৎ কাজ করে থাকে এতে তারা অনেকেই এডমিন, মডারেটর থাকে। যদি কাজগুলো রক্তদান, দুস্থদের সাহায্য, সচেতনা ইত্যাদি সামাজিক কাজ করে থাকেন তবে তার ডিটেইলস উল্লেখ করুন।
৫. অর্জন: প্রতিটি সার্টিফিকেট পরিক্ষায় কি কি শিখতে পারছেন তা উল্লেখ করুন, যেমন আমি আমার সিভিতে SSC তে লিখেছিলাম এ্যাডুকেশনাল ফান্ডামেন্টাল, তাতে এক ইন্টারর্ভিউতে আমার খুব প্রসংসা করলো 😊 তারপর ভাবা শুরু করলাম তারপরের গুলোতে কি কি লেখা যায় এবং কি কি শিখেছিলাম সব লেখার পর যেখানেই যাই শুধু বেতন নিয়া কথা হয় আর কিছুই জিজ্ঞাসা করে না।
৬. রেফারেন্স: আপনার পরিচিত সর্বশেষ টিচার না থাকলে অফিসার বা ম্যানেজার কোন পরিচিত বা আত্মিয়ের তথ্য দিতে পারেন এক্ষেত্রে তাকে অবশ্যই জানাবেন যে আপনি তার নাম রেফারেন্স হিসেবে আপনার সিভিতে দিচ্ছেন।
তথ্যটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Welcome...
Have you face any kind of problem just comment.