পড়াশুনা শেষ করেই যখন চাকুরীতে ঢুকতে চান তখন অভিজ্ঞতা চাইলে আপনি তো অবাক পড়াশুনা করেই তো শেষ করলাম সময়, অভিজ্ঞতা কোথায় পাব। ভাই কত যে পড়াশুনা করেছেন যে কাজ করার সময় পান নাই। নিচের কাজ গুলো দেখুন আর অভিজ্ঞতার ঝুড়িতে অভিজ্ঞতা বাড়ান পরিচিত কোন দোকানে পার্টটাইম কাজ না খুজে দোকানদারের সাথে খাতির জমিয়ে তার মালামাল বিক্রয় কৌশন শিখে তার দোকানে তার মত মালামাল বিক্রয় করা। অভিজ্ঞতা দিবেন সেলস্‌ ম্যান তার পর ৬ মাস বা একবছর লিখে দিবেন সিভিতে। দায়িত্ব সমূহঃ মালামাল বাকিতে এবং নগদ টাকায় বিক্রয়। বাকিতে বিক্রয়কৃত হিসাব লিপিবদ্ধ। নগদ ও বাকি টাকায় মালামাল ক্রয় এবং বাকিতে ক্রয়কৃত মালামালের পাওনাদারদের হিসাব লিপিবদ্ধ এবং পরিশোধ। খাজনা পরিশোধ। মালামাল শট করা। দোকান পরিষ্কার রাখা। এক্সপায়ার ডেট জেনে আগের মালমাল আগে বিক্রয় করা।  মেসে থাকলে মেস ম্যানেজার হওয়া বা মেস ম্যানেজার এর কাজ গুলো বুঝে তার সাথে কাজ করা তাকে সাহায্য করা। পোস্ট: মেস ম্যানেজার। দায়িত্বঃ রুমের ভাড়া উঠানো। ভাড়া মালিককে বুঝিয়ে দেয়া। রুম ভাড়া না উঠাতে পারলে রুমমেট এবং মালিকে বোঝানো। বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস, পানির বিল পরিশোধ। বাজার করানো, সম্ভব না হলে নিজে ম্যানেজ। রাধুনি ম্যানেজ। কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনার উদ্ভব হলে তা ম্যানেজ করা। সকল হিসাব সংরক্ষণ।    

সাইকেল গ্রুপের লিডার, সাইকেল থাকলে ঘুড়তে বের হন সাথে জোগাড় করুন সাথী আর তাদের সাথে সারা বছর ঘোরাঘুড়ি করে সিভিতে যোগ করে দিতে পারেন সাইকেল গ্রুপ লিডার পোস্ট। দায়িত্বসমূহঃ ইভেন্টের সময় নির্ধারণ, সবাইকে জানানো, সম্ভাব্য কাউকে বোঝানো তাকে দলে আনা, সম্ভাব্য সমস্যা মোকাবেলায় প্রস্তুতি গ্রহন, ফার্স্ট  এইড দেয়া, উদ্ভব নতুন সমস্যার মোকাবেলা। 
ব্লাড ডোনেশন গ্রুপের লিডার, পরিচিত এবং বন্ধুদের রক্তের গ্রুপ সংগ্রহ করে প্রয়োজন অন্যের জন্য রক্তের যোগান দিয়ে মানবিক সাহায্য করে যে সময় ব্যয় করবেন তা সিভিতে এ্যড করতে পারেন পোস্ট ব্লাড ডোনার গ্রুপ লিডারদায়িত্বঃ সকলের এবং নতুন সবার ব্লাগ গ্রুপ লিস্ট করে রাখা, সর্বশেষ ডোনেশন ডেট আপডেট রাখা, নতুনদের উৎসাহ দেয়া, রক্তদাতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা, সামাজিক মাধ্যমে তাদের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি।
বিভিন্ন মেলায় বিক্রয় কর্মী হওয়া। পোস্ট বিক্রয় কর্মীদায়িত্বঃ এটা যখন কাজ করবেন তখন উদ্যোক্তা কাজ বুঝিয়ে দিবে। আপনি শুধু  একরাশ আগ্রহ দেখাবেন। কাজ আপনার হবেই।
 

ট্রাফিক সহকারী পোস্ট। ট্রাফিক সহকারী হিসেবে কাজ করা খুব একটা সহজ কাজ নয় কিন্তু আপনি ট্রাফিক পুলিশের কাছে আপনার আগ্রহ এবং শিক্ষা জীবনে অভিজ্ঞতার জন্য কয়েকদিন তার সহকারী হিসেবে কাজ করতে চান জানিয়ে তার সাথে কাজ করুন। দায়িত্ব সমূহ তার কাছ থেকেই জানতে পারবেন। সেচ্ছাসেবক, সেচ্ছা সেবক বলতে কোন দল/লিগের সাথে যাবেন না। অনেক সেচ্ছাসেবক সংগঠন আছে যারা শুধু সেবাই করে এমন কোন সংগঠনের খাতায় আপনার নাম লিখে অযোথা সময় নষ্ট না করে তাদের কাজে সহযোগিতা করেন আর অভিজ্ঞতার তাদের থেকে প্রাপ্ত পোস্ট এবং দায়িত্ব নিয়ে নিন। কুরিয়ার সার্ভিসঃ প্রতিটা শহরে কুরিয়ার সার্ভিস বর্তমানে জনপ্রিয় চাকুরী। তারাই একটা সাইকেল দিবে আপনি তাতে করে আশেপাশের এলাকায় তাদের প্রডাক্ট পৌছে দিবেন। পোস্ট ডেলিভারি ম্যান, দায়িত্বঃ সঠিক সময়ে পন্য পৌছানো, সেবা মূল্য গ্রহন, কোম্পানির অফার জানানো, ইত্যাদি। সর্বশেষে কাজ শেখার আগে পেমেন্ট নিয়ে কোন চিন্তাই করবেন না। কারণ কাজ করার সুযোগ আপনি পেয়েছেন তাতেই ইয়াহু/গুগুল বলে কাজে লেগে যান দু সপ্তাহের ভিতর আপানি কাজ সম্পকে বুঝে যাবেন আর অভিজ্ঞতা  হয়ে গেলে আপনি পেমেন্ট চাইবেন, মালিক দিতে না চাইলে এই অভিজ্ঞতা নিয়ে অন্য জায়গায় ভালো বেতনে কাজ পেয়ে যাবেন।

তথ্যটি শেয়ার করুন
No comments